Inspiration : Swami Advaitananda


Swami Advaitananda started his spiritual journey late, at the age of forty-seven when he first met Sri Ramakrishna. He was even older than Sri Ramakrishna by eight years. But his sincerity and steadfast devotion placed him at par with Sri Ramakrishna’s young monastic disciples and brought him spiritual fulfillment. His pre-monastic name was Gopal Chandra Ghosh. In the middle of January 1886, he purchased twelve pieces of cloths and twelve rosaries to distribute among the monks visiting Gangasagar for pilgrimage. When Sri Ramakrishna heard it, he said to him referring to his twelve monastic disciples, ‘Where else will you find such all-renouncing souls? Each one of them is equal to a thousand monks’. Sri Ramakrishna included Gopal also  among these ‘all-renouncing souls’, because on 12 January 1886, when he  distributed eleven ochre cloths and rosaries to eleven of his future monastic disciples, Gopal also received one.

            Sri Ramakrishna made Advaitanandaji a role model for elderly seekers of God. He will be ever remembered by the Ramakrishna Order for his cheerful manners, methodical ways, self-reliance, untiring zeal in every work he undertook, and for his implicit devotion to the Master and his cause.


স্বামী অদ্বৈতানন্দজী তাঁর আধ্যাত্মিক যাত্রা শুরু করেছিলেন কিছুটা দেরী করে — সাতচল্লিশ বছর বয়সে, যখন তিনি শ্রীরামকৃষ্ণকে প্রথম দর্শন করেন| সন্ন্যাস-পূর্ব জীবনে তাঁর নাম ছিল গোপালচন্দ্র ঘোষ|  তিনি শ্রীরামকৃষ্ণদেবের থেকেও আট বছর বড় ছিলেন | কিন্তু তাঁর আন্তরিকতা ও অটল নিষ্ঠার গুণে তিনি শ্রীরামকৃষ্ণের তরুণ সন্ন্যাসী-শিষ্যদের  সমপর্যায়ে পৌঁছেছিলেন এবং আধ্যাত্মিক জীবনে পরিপূর্ণতা লাভ করেছিলেন| ১৮৮৬-র জানুয়ারির মধ্যভাগে তিনি বারোটি ধুতি এবং বারোটি রুদ্রাক্ষের মালা কিনে গঙ্গাসাগর-তীর্থযাত্রী সন্ন্যাসীদের দেবেন বলে স্থির করেছিলেন| কিন্তু শ্রীরামকৃষ্ণ তাঁর এই সংকল্পের কথা শুনে নিজের ত্যাগী শিষ্যদের কথা উল্লেখ করে তাঁকে বলেন : ‘এদের মতো সর্বস্ব-ত্যাগী তুমি আর কোথায় পাবে? এদের প্রত্যেকে হাজার সন্ন্যাসীর সমান|’ তাঁর এই সর্বত্যাগী শিষ্যদের মধ্যে শ্রীরামকৃষ্ণ ‘গোপাল’কেও অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন| কারণ, ১২ জানুয়ারি ১৮৮৬ তারিখে শ্রীরামকৃষ্ণ যখন তাঁর ভবিষ্যত্‍ ত্যাগী-সন্তানদের মধ্যে এগারো জনকে নিজের হাতে গেরুয়া কাপড় ও রুদ্রাক্ষের মালা দিয়েছিলেন, তখন গোপালও তা লাভ করেছিলেন|

     আধ্যাত্মিক-সাধকদের মধ্যে যাঁরা কিঞ্চিত্‍ বয়স্ক, অদ্বৈতানন্দজীকে শ্রীরামকৃষ্ণ তাঁদের আদর্শরূপে তৈরী করেছেন| তাঁর সদা-প্রফুল্ল ভাব, সুশৃঙ্খল জীবন, স্বনির্ভরতা, প্রতিটি কাজে নিরলস উদ্যোগ এবং শ্রীরামকৃষ্ণ ও তাঁর কাজের প্রতি নিবিড় নিষ্ঠার জন্য রামকৃষ্ণ-সঙ্ঘে তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন|


 

You might also like